বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য

বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য

বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য: বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর ১৯৭২ সালে সংবিধান তৈরির জন্য ৩৪ সদস্যবিশিষ্ট খসড়া সংবিধান প্রণয়ন কমিটি গঠিত হয়। উক্ত কমিটির সভাপতি ছিলেন ড. কামাল হােসেন। এ খসড়া কমিটির প্রথম অধিবেশন বসে ১৯৭২ সালের ১৭ই এপ্রিল।

 এ কমিটি অক্লান্ত পরিশ্রম করে বাংলাদেশের খসড়া সংবিধান তৈরি করে এবং তা গণপরিষদে উত্থাপিত হয়। ১৯শে অক্টোবর থেকে ৪ঠা নভেম্বর পর্যন্ত গণপরিষদে সংবিধানের খসড়া পাঠ করা হয়। 

বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য

গণপরিষদে বিভিন্ন সদস্যের পক্ষে-বিপক্ষে মতামত দানের পর অবশেষে পরিমার্জিত হয়ে উক্ত সংবিধান ৪ঠা নভেম্বর ১৯৭২ সালে গণপরিষদ কর্তৃক গৃহীত হয় এবং ১৬ই ডিসেম্বর ১৯৭২ থেকে তা কার্যকর হয় । 

বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য

বাংলাদেশের সংবিধানের বৈশিষ্ট্য

বাংলাদেশের বর্তমান সংবিধানের উল্লেখযােগ্য বৈশিষ্ট্যসমূহ নিমে বর্ণনা করা হলাে

১. লিখিত দলিল : 

বাংলাদেশের সংবিধান একটি লিখিত দলিল । এর ১৫৩টি অনুচ্ছেদ রয়েছে। এটি ১১টি ভাগে বিভক্ত। এর একটি প্রস্তাবনাসহ সাতটি তফসিল রয়েছে। 

২. দুষ্পরিবর্তনীয় : 

বাংলাদেশের সংবিধান দুস্পরিবর্তনীয়। কারণ, এর কোনাে নিয়ম পরিবর্তন বা সংশােধন করতে জাতীয় সংসদের দুই-তৃতীয়াংশ সদস্যের সম্মতির প্রয়ােজন হয়। 

বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য

রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি : 

জাতীয়তাবাদ, সমাজতন্ত্র, গণতন্ত্র ও ধর্মনিরপেক্ষতাকে রাষ্ট্র পরিচালনার মূলনীতি নির্ধারণ করা হয়েছে। রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে এসব মূলনীতির দ্বারা অনুপ্রাণিত ও প্রভাবিত হয়ে বিভিন্ন কর্তৃপক্ষ তাদের কার্যক্রম পরিচালনা করে। 

মৌলিক অধিকার : 

বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য

সংবিধান হলাে রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন। বাংলাদেশের নাগরিক হিসেবে আমরা কী কী অধিকার ভােগ করতে পারব তা সংবিধানে উল্লেখ থাকায় এগুলাের গুরুত্ব বৃদ্ধি পেয়েছে । যেমন- জীবনধারণের অধিকার, চলাফেরার অধিকার, বাকস্বাধীনতার অধিকার, চিন্তা ও বিবেকের

স্বাধীনতা, ধর্মচর্চার অধিকার, সম্পত্তির অধিকার ইত্যাদি। 

৫. সর্বজনীন ভােটাধিকার : 

বাংলাদেশের সংবিধানে সর্বজনীন ভােটাধিকার প্রদান করা হয়েছে। অর্থাৎ জাতি, ধর্ম, বর্ণ, লিঙ্গ, পেশা ইত্যাদি নির্বিশেষে ১৮ বছর বয়সের এ দেশের সকল নাগরিক ভােটাধিকার লাভ করেছে।

৬. প্রজাতান্ত্রিক : 

সংবিধান অনুযায়ী বাংলাদেশ একটি প্রজাতান্ত্রিক রাষ্ট্র । এখানে সকল ক্ষমতার মালিক জনগণ। জনগণের পক্ষে নির্বাচিত প্রতিনিধিগণ রাষ্ট্র পরিচালনা করবেন। 

৭. সংসদীয় সরকার : 

বাংলাদেশের সংবিধানে সংসদীয় বা মন্ত্রিপরিষদ শাসিত সরকারব্যবস্থা প্রবর্তন করা হয়। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বাধীন মন্ত্রিসভার হাতে শাসনকার্য পরিচালনার ভার অর্পণ করা হয়।

এ সরকারব্যবস্থায় মন্ত্রিপরিষদ তার কাজের জন্য আইনসভার নিকট দায়ী থাকে। 

৮. এককেন্দ্রিক রাষ্ট্র : 

বাংলাদেশ একটি এককেন্দ্রিক রাষ্ট্র। এখানে যুক্তরাষ্ট্রীয় ব্যবস্থার মতাে কোনাে অঙ্গরাজ্য বা প্রাদেশিক সরকার নেই। জাতীয় পর্যায়ে একটিমাত্র কেন্দ্রীয় সরকার দ্বারা সমগ্র দেশ পরিচালিত হয় । 

৯. আইনসভা : 

বাংলাদেশের আইনসভা এক কক্ষবিশিষ্ট। এটি সার্বভৌম আইন প্রণয়নকারী সংস্থা। এর নাম জাতীয় সংসদ। বর্তমানে জাতীয় সংসদ ৩৫০ জন সদস্য নিয়ে গঠিত। সংসদের মেয়াদ ৫

বছর। 

১০. সর্বোচ্চ আইন : 

বাংলাদেশের সংবিধান রাষ্ট্রের সর্বোচ্চ আইন। কারণ বাংলাদেশের সংবিধানের সাথে  দেশের প্রচলিত কোনাে আইনের সংঘাত সৃষ্টি হলে সে ক্ষেত্রে সংবিধান প্রাধান্য পাবে। অর্থাৎ যদি কোনাে আইন সংবিধানের সাথে সামঞ্জস্যহীন হয়, তাহলে ঐ আইনের যতখানি অসামঞ্জস্যপূর্ণ ততােখানি বাতিল হয়ে যাবে ।

১১. বিচার বিভাগের স্বাধীনতা : 

বাংলাদেশের সংবিধানে একটি স্বাধীন ও নিরপেক্ষ বিচার বিভাগের বিধান রয়েছে । 

এই ধরনের আরও পোষ্ট পেতে আমাদের poramorso24.com নিয়মিত ভিজিট করুন । ধর্যসহকারে পড়ার জন্য ধন্যবাদ। বাংলাদেশের সংবিধান কি ও সংবিধানের বৈশিষ্ট্য।

আরও পড়ুন

  1. রাষ্ট্র ও সরকারব্যবস্থা কাকে বলে
  2. সাম্য বলতে কি বোঝায়
  3. সুনাগরিকের সংজ্ঞা
  4. স্বাধীনতা বলতে কি বোঝায়
  5. সার্ক কেন গঠিত হয়েছিল (SAARC)
  6. স্বাধীনতা ঘােষণা

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *